কক্সবাজার মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাসে ডাকাতি, গুলিবিদ্ধসহ আহত ৯

EKATTOR24.NETEKATTOR24.NET
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  02:00 PM, 27 November 2020
কক্সবাজার মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাসে ডাকাতি, গুলিবিদ্ধসহ আহত ৯

।।নিজস্ব প্রতিবেদক।।

কক্সবাজার-চট্রগ্রাম মহাসড়কের ২৭ নভেম্বর রাত সাড়ে তিনটার সময় চট্রগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী সৌদিয়া চেয়ারকোচ চকরিয়া ফাসিঁয়াখালী হাঁসের দিঘি নামক স্থানে পৌছলে যাত্রী বেশে কর্ণফুলী নতুন ব্রীজ থেকে উঠা ৭/৮জনের সশস্ত্র ডাকাত দল গাড়ীতে থাকা যাত্রীদের লক্ষ্যকরে এলোপাতাড়ি গুলি ও মারধর করে যাত্রীদের কাছে থাকা নগদ টাকা মোবাইল মহিলাদের স্বর্ণ অলংকারসহ সব কিছু কেড়ে নেয়।
এসময় ডাকাতের এলোপাতাড়ি গুলিতে ৪জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে ৯জন আহত হয়। গুলিবিদ্ধদের মধ্যে দুইজনের অবস্থায় আশংকা জনক হওয়ায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পরিবহণ শ্রমিক জানান, গত ১৫দিনে আগে যাত্রীবাহী মারছা ও এস আলম একই স্থানে পরপর দুইবার ডাকাতি হলেও পুলিশ কোন ধরনের ব্যবস্থা না নেওয়ার ফের উক্ত ডাকাতি সংঘঠিত হয়।
২৭ নভেম্বর (শুক্রবার) ভোর রাতে সংঘঠিত ডাকাতির ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত আবদুল্লাহ আল মামুন (২৭)সহ দুইজনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মামুন টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের পানছড়ি গ্রামের এজাহার আহমদের ছেলে। গুলিবিদ্ধ অপরজনসহ মারধর ও ছুরিকাগাতে আহতরা কক্সবাজারের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে চলে যাওয়ায় নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাসের চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারকে থানায় আটক রাখা হয়েছে।
জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে চট্টগ্রামের সিনেমা প্যালেস থেকে ৩৩জন যাত্রী নিয়ে টেকনাফগামী সৌদিয়া পরিবহনের একটি বাস (নং-চট্টমেট্রো-ব-১১-১১২৫) ছাড়ে। পরে কর্ণফুলি নতুন ব্রীজ এলাকা থেকে লুঙ্গি পরিহিত ব্যাগ নিয়ে ৭ যাত্রী বাসে উঠে।
বাসটি রাত সাড়ে তিনটার দিকে মহাসড়কের চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালী ঢালায় পৌছলে ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে চালককে জিন্মি করে চালকের আসনে বসে এক ডাকাত গাড়ি চালাতে থাকে। অপরাপর ডাকাতরা চলন্ত বাসে দেশীয় তৈরী কাটা বন্দুক, চাপাতি ও ছোরার ভয় দেখিয়ে সব যাত্রীর মোবাইল ও নগদ টাকা কেড়ে নেয়। পরে বাসটি খুটাখালী ইউনিয়নের বহলতলী এলাকায় দাঁড়িয়ে ডাকাত দল পালিয়ে যায়।
পরে বাসটির চালক গাড়ি চালিয়ে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আহতদের ভর্তি করেন। গুলিবিদ্ধ দুইজনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়।
চট্টগ্রামের বিল্লাল হোসেন জনি নামের এক যাত্রী জানান, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে সেন্টমার্টিন যাওয়ার উদ্যেশ্যে ৬ বন্ধু মিলে চট্টগ্রামের সিনেমা প্যালেস থেকে টেকনাফগামী সৌদিয়া পরিবহণের একটি বাসে উঠে। রাত সাড়ে তিনটার দিকে মহাসড়কের চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালী এলাকায় পৌছলে যাত্রীবেশে ডাকাত দল আমাদের সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিন্মি করে মোবাইল ও নগদ টাকা কেড়ে নেয়। এসময় বাধা দেয়ায় দুই যাত্রীকে গুলি করে ডাকাত দল। সবাইকে কম বেশী মারধরও করে তারা। এসময় ডাকাত দল নগদ টাকা মোবাইলসহ আনুমানিক ২০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে তিনি দাবী করেছেন।
চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আশরাফ হোসেন কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি জানান, গত ১৫দিন আগে একই স্থানে পর পর দুইটি গাড়ী ডাকাতি বিষয়টি তারা শুনলেও কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। নতুন করে যাত্রীবাহী বাস ডাকাতির ঘটনায় কয়েকজন যাত্রী থানায় এসে লিখিত অভিযোগ করলে তা মামলা হিসেবে নেয়া হয়েছে। ওই ঘটনায় ডাকাতি কবলিত গাড়ীটি জব্দ ও চালক,সুপারভাইজার ও হেলপারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক দেখানো হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :